ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি - ১

  • Follow us on TwitterFollow us on Twitter
  • We are on FacebookWe are on Facebook

অনলাইনে নতুন সংযোগ আবেদনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন

পরিমিত ব্যবহার করুন, দারিদ্র মোচনে ভুমিকা রাখুন!

স্বাগতম

দেশের সার্বিক উন্নয়ণের লক্ষ্যে বিদ্যুৎ সরবরাহের অবকাঠামো সৃষ্টির মাধ্যমে কৃষি উন্নয়ন, গ্রামীণ শিল্পায়ন, বেকার সমস্যার সমাধান ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে “লাভ নয়, লোকসান নয়” এবং “গ্রাহকগণই প্রকৃত মালিক” ধারণার ভিত্তিতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি হিসেবে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ১৯৮২ সালে আত্মপ্রকাশ করে। দেশীয় সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার এবং প্রাপ্ত বৈদেশিক সহায়তাকে পরিপূর্ণভাবে কাজে লাগিয়ে পল্লী বিদ্যুতায়ন কার্যক্রম গ্রামীণ আর্থ-সামাজিক উন্নয়ণের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। ১৯৭৭ সালের ৩১ অক্টোবর পল্লী বিদ্যুতায়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড গঠিত হয় এবং পর্যায়ক্রমে দেশের সর্বত্র বিদ্যুতায়নের উদ্দেশ্যে কার্যক্রম শুরু করে। তন্মধ্যে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ১৯৮২ সালের ২৭ আগস্ট রেজিষ্ট্রেশনপ্রাপ্ত হয় ও ১৯৮৪ সালের ১৫ মার্চ বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ বিতরণ শুরু করে। এতদ অঞ্চলের কৃষি, শিল্প ও বাণিজ্যিক ক্ষেত্র প্রসারে ও জীবন যাত্রার মান উন্নয়ণ ও গণ সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ইতিবাচক ভূমিকা পালন করে চলছে। সমিতিকে আর্থিকভাবে স্বণির্ভর করার লক্ষ্যে নিয়মতান্ত্রিকভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহণ করা, সংযোগপ্রাপ্ত সকল সম্মানিত গ্রাহকগণের নিয়মিত বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করা, ট্রান্সফরমার চুরি রোধে সহায়তা করা এবং সমিতির দৈনন্দিন কাজে সহযোগীতা করাসহ সম্ভাব্য সকল ক্ষেত্রে বিদ্যুতের যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে সমিতির উত্তরোত্তর সমৃদ্ধিতে সংশ্লিষ্ট সকলের ভূমিকা রাখা জরুরী।

সমিতি সম্পর্কে

চেয়ারম্যান মহোদয়ের বাণী



স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭২ সালে রচিত মহান সংবিধানের ১৬ নং অনুচ্ছেদে “নগর ও গ্রামাঞ্চলের জীবনযাত্রার মানের বৈষম্য ক্রমাগতভাবে দূর করার উদ্দেশ্যে কৃষি বিপ্লবের বিকাশ, গ্রামাঞ্চলে বৈদ্যুতীকরণের ব্যবস্থা, কুটির শিল্প ও অন্যান্য শিল্পের বিকাশ এবং শিক্ষা, যোগাযোগ-ব্যবস্থা ও জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নের মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলের আমূল রুপান্তরসাধনের জন্য রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করবেন” মর্মেঅঙ্গীকার করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু পল্লী অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহে গুরুত্বারোপ করে বলেছিলেন, “বিদ্যুৎ ছাড়া কোন কাজ হয় না, কিন্ত দেশের জনসংখ্যা শতকরা ১৫ ভাগ লোক যে শহরের অধিবাসী সেখানে বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা থাকিলেও শতকরা ৮৫জনের বাসস্থান গ্রামে বিদ্যুৎ না। ....গ্রামে গ্রামে বিদ্যুৎ সরবরাহ করিতে হইবে। ইহার ফলে গ্রাম বাংলার সর্বক্ষেত্রে উন্নতি হইবে। বন্যা নিয়ন্ত্রন ও গ্রামে গ্রামে বিদ্যুৎ চালু করিতে পারিলে কয়েক বছরের মধ্যে আর বিদেশ হইতে খাদ্য আমদানি করিতে হইবে না ( দৈনিক ইত্তেফাক, ১১/০৭/১৯৭৫)।” জাতির পিতার সুদূর প্রসারী এ চিন্তা ভাবনার ধারাবাহিকতায় পল্লীর জনগণের দোরগোড়ায় বিদ্যুৎ সুবিধা পৌছানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড প্রতিষ্ঠা করা হয়।
বিস্তারিত পড়ুন

মহাপরিচালক মহোদয়ের বাণী


পল্লী বিদ্যুতায়ন কার্যক্রম স্বাধীন বাংলাদেশে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে একটি সুদৃঢ় সফল সংযোজন। “লাভ নয়, লোকসান নয়” এ নীতির ভিত্তিতে পরিচালিত একটি জাতীয় কর্মসূচীকে সফল করার দৃঢ় প্রত্যয়ে ময়মনসিংহ ও টাংগাইল জেলার ০৮টি উপজেলায় বিদ্যুৎ বিতরণে নিয়োজিত ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ একটি সমবায় ভিত্তিক সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান। সম্মানিত গ্রাহকগণই সমিতির মালিক ও সেবক, এ ধারনা ভিত্তিক পল্লী বিদ্যুতায়ন কার্যক্রম দেশে-বিদেশে বেশ প্রশংসিত হয়েছে এবং তারই ধারাবাহিকতা এখনো অব্যাহত রয়েছে। সুষ্ঠু ও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ, বিতরণ লাইন রক্ষনাবেক্ষন, গ্রাহক অভিযোগ তড়িৎ নিরসন, সময়মত বিদ্যুৎ বিল বিতরণসহ উন্নত গ্রাহক সেবা প্রদানের জন্য সমিতির ভৌগলিক এলাকায় সদর দপ্তর ছাড়াও বর্তমানে ০৩টি জোনাল অফিস, ০১টি সাব জোনাল অফিস, ০২ টি এরিয়া অফিস এবং বিভিন্ন স্থানে ১৬টি অভিযোগ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। আপনারা জেনে আনন্দিত হবেন শত প্রতিকুলতা ও সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও অত্র সমিতি অক্টোবর’২০১৬ইং পর্যন্ত ৫,৯০৭ কিঃ মিঃ লাইন বিদ্যুতায়ন করে বিভিন্ন শ্রেণী মোট ২,৫২,৩৪০ জন গ্রাহকের জন্য সংযোগ সুবিধা সৃষ্টি করা হয়েছে।
বিস্তারিত পড়ুন